কিভাবে নিজেকে আবিষ্কারের মাধ্যমে সফলতা অর্জন করা যায়

শেয়ার করুন

জীবনে সফল হওয়ার জন্য নিজেকে জানা জরুরী। সফলতার পথ কখনো সুনির্দিষ্ট থাকে না। একেক জনের জন্য সফলতা একেক রকম। সবারই সফল হওয়ার পথটি নির্ভর করে তার নিজের ব্যক্তিত্ব, তার পরিশ্রম করার ক্ষমতা কিংবা সময়ের সুব্যবহারের উপর। কেউ কেউ গভীর রাতে কাজ করতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করে। কেউ কেউ বা সকালে। তাই আপনি কোন পথটা বেছে নেবেন সেটা জানার জন্য সবার আগে আপনার নিজেকে জানা জরুরী।

কিন্তু কিভাবে আপনি নিজেকে খুঁজে পাবেন? কিভাবে আপনি নিজেকে জানবেন?

আমাদের আজকের এই লেখাটি আপনাদের নিজেকে খুঁজে পেতে কিংবা জানতে সাহায্য করবে।

আজকে আমরা ১০ টি উপায় নিয়ে আলোচনা করবোঃ

১) নিজের জীবনের রচনা নিজেই লিখুনঃ

আপনার নিজের জীবনের সব লক্ষ্য লিখে রাখুন যা আপনি পূরন করতে চান। অন্য দিকে লিখে রাখুন আপনার জীবনের সেই সকল ঘটনা গুলো, যা আপনার জীবনে ইতিমধ্যে ঘটে গেছে এবং আপনাকে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে। সেই সাথে শিখিয়েছে অনেক কিছু। যখন আমাদের জীবনে খারাপ সময় আসে তখন তা আমাদের বিশ্বাসকে আরো সুসংঘটিত করে এবং আমাদের ভিন্নভাবে চিন্তা করতে শেখায়। তাই সকল ভুল এবং সমস্যা গুলো বিশ্লেষণ করে এসব থেকেই আমাদের শিক্ষা নিতে হবে।

 

২) অন্যদের চিন্তা থেকে নিজের চিন্তা আলাদা করুনঃ

অন্যের চাপিয়ে দেওয়া মন্তব্যকে কখনও নিজের সামর্থ্য হিসেবে নিবেন না। আপনিকে এটা অন্য একজন ব্যক্তি ব্যাখ্যা করে দিতে পারবে না। ছোট ছোট কিছু ঘটনা থেকে তৈরী হওয়া ব্যর্থতা কখনোই আপনাকে প্রকাশ করে না। কত বার আপনি ব্যর্থতাকে পেছনে ফেলে ঘুরে দাড়িয়েছেন সেটাই আপনার পরিচয় বহন করে। তাই অন্যের চিন্তা থেকে নিজের চিন্তা আলাদা করুন। অন্যের ভাবনা যেন আপনার ভাবনাকে প্রভাবিত না করে।

৩) নিজের উপর বিশ্বাস রাখুনঃ

আত্মবিশ্বাস এবং নিজের উপর নির্ভরতা নিজেকে খুঁজে পাওয়ার সর্ব প্রথম শর্ত। আপনার যদি নিজের সম্পর্কে কোনো কাঠামো বদ্ধ মূল্যায়ন না থাকে, তাহলে আপনি কখনোই আপনাকে জাজ করতে পারবেন না। অন্যের কথায় যদি আপনি নিজেকে মূল্যায়ন করেন তাহলে আপনি কখনোই আপনার অন্তর্নিহিত শক্তি, আপনার ক্ষমতাকে খুঁজে পাবেন না। তাই নিজেকে খুঁজে পেতে নিজের উপর বিশ্বাস রাখুন এবং নিজেকে মূল্যায়ন করতে শিখুন।

আরো পড়ুনঃ ইতিবাচক চিন্তা করার সহজ কৌশল

 

৪) নিজের নীতিগত ধারনা গুলো উন্নত করুন এবং সে অনুযায়ী কাজ করুনঃ

প্রতিদিনই আমরা নতুন কিছু জানছি, নতুন কিছু শিখছি। এই নতুন নতুন শিখা গুলোর মাধ্যমে আমরা নীতিগত পরিবর্তন আনতে পারি এবং সেই অনুযায়ী কাজ করে আমরা আমাদের অভ্যাস গুলো আরো সুন্দর করতে পারি।

৫) নিজের দুনিয়াকে সাজানঃ

প্রতিদিন আমাদের অনেক কাজ করার থাকে, কিন্তু আমরা কোনো কাজই সঠিক ভাবে শেষ করতে পারি না। এর প্রধান কারন কাজ গুলোকে আমরা সঠিক ভাবে গুছিয়ে নিতে পারি না। সব কাজ একসাথে শুরু করলে তা কখনোই শেষ হবে না। কাজের গুরুত্বের উপর নির্ভর করে যদি আমরা কাজ গুলোকে সাজিয়ে নেই, তাহলে সেটা শেষ করতে বেশি সুবিধা হবে। যেমন সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজ গুলো প্রথমে, এর পর এর চেয়ে কম গুরুত্বপূর্ণ কাজ, এভাবে এক সময় সব গুলো কাজই শেষ হয়ে যাবে।

 

৬) নিজেকে নির্জনতায় মগ্ন করুনঃ

রোজকার জীবনের ব্যস্ততা থেকে কিছু সময়ের জন্য ছুটি নিন। নিজেকে নির্জনতায় নিমগ্ন করুন। নিজের চাওয়া, পাওয়া, প্রাপ্তি, অপ্রাপ্তির হিসাব করুন। প্রত্যেকটি মানুষেরই নিজের সাথে সময় কাটানো প্রয়োজন। ওই সময় টুকু শুধু মাত্র তার নিজেরই থাকবে। এর মাধ্যমে নিজের সাথে কথোপকথন হয়, নিজেকে আরো ভাল ভাবে জানা যায়।

আরো পড়ুনঃ সুখী হওয়ার ১০ টি সহজ কৌশল

 

৭) নিজের প্যাশনকে খুঁজে বের করুনঃ

যখন আপনি কোনো কিছুতে বিশ্বাস করবেন এবং কোনো কিছুতে সুন্দর কিছু খুঁজে পাবেন, তখন সেই কাজটিই করুন, অন্য জন কিভাবছে সেটা আপনার দেখার বিষয় নয়। যদি আপনি এমন কিছু খুঁজে পান যা আপনার চেষ্টা, পরিশ্রম, চোখেরজল এবং আত্মত্যাগের জন্য যথার্থ, তাহলে আপনি আপনার জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উদ্দেশ্য খুঁজে পেয়েছেন। যা অনেক সময় আপনাকে সাফল্যেরর চূড়ায় নিয়ে যেতে পারে।

৮) একজন মেন্টর খুঁজে বের করুনঃ

একজন মেন্টর খুঁজে বের করুন যে আপনাকে সঠিক সময় সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে সাহায্য করবে। আপনার জীবন যাপনের গঠন সম্পর্কে তার সাথে আলোচনা করতে পারবেন। এতে আপনার নিজেকে খুঁজে পেতে সুবিধা হবে।

 

৯) সকলকে সুখী করতে চেষ্টা করবেন নাঃ

একটা মানুষ কখনোই সকলকে সুখী করতে পারে না। এটা কখনোই সম্ভব নয়, কেননা একেকজনের সুখী হওয়ার কারন একেকরকম। তাই সেটাই করা উচিৎ যা আপনাকে সুখী করে। নিজের ভাল লাগা এবং সুখকে প্রাধান্য দিন।

 

১০) নিজেকে প্রশ্ন করুনঃ

নিজেকে প্রশ্ন করুন। নিজের উত্তর গুলো সাজান। এরই মাঝে আপনি আপনাকে খুঁজে পাবেন, যা আপনার পরবর্তী চলার পথকে সুগম করবে।


শেয়ার করুন

Leave a Comment